ঢাকা রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬
৩৪ °সে


চুরির অভিযোগে সালিশে হাত বেঁধে যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

চুরির অভিযোগে সালিশে হাত বেঁধে যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন
ন‌ওগাঁ, রাজশাহী। ছবি: গুগল ম্যাপ থেকে

নওগাঁর মান্দায় মানিব্যাগ চুরির অভিযোগ তুলে রেজাউল ইসলাম (৩৮) নামে এক ব্যক্তিকে সালিশ বৈঠকে হাত বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। রবিবার রাত ১০ টার দিকে উপজেলার হুলিবাড়ী চকেরহাট চৌরাস্তার মোড়ে স্থানীয় মাতব্বরদের আয়োজিত সালিশে তাকে এভাবে নির্যাতন করা হয়। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে রেজাউল ইসলামের স্ত্রী বাদী হয়ে ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, নির্যাতনে গুরুতর আহত রেজাউল ইসলাম বর্তমানে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিনি উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের পারইটুঙ্গী গ্রামের আবদুল হামিদের ছেলে ও পেশায় অটোরিকশা চালক।

চিকিৎসাধীন রেজাউল ইসলাম জানান, পেশায় আমি একজন অটোরিকশা চালক। শনিবার রাত ৮টার দিকে চকেরহাট প্রমোদ কুমার মন্ডলের দোকানে চা খেয়ে বাড়ি চলে যাই। এ সময় ওই চায়ের দোকানে আরও লোকজন বসা ছিল। রবিবার মামুনুর রশিদ ও মেম্বার বেলাল হোসেন ঝড় নামে এক ব্যক্তির মানিব্যাগ চুরির অভিযোগ তুলেন। এ অভিযোগ থেকে বাঁচতে তারা আমার নিকট ১০ হাজার টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় রাতেই গ্রাম পুলিশ দিয়ে চকেরহাটে ধরে এনে হাত বেঁধে আমাকে নির্যাতন করেছেন মাতবররা।

তিনি আরও জানান, নির্যাতনে আমি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ি। স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক মোজাহার হোসেন ডন আমাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছে। পরে ওই রাতে একটি ভ্যান ভাড়া করে বাসায় চলে যাই। সোমবার সকালে আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে আত্মীয়-স্বজনরা আমাকে মান্দা হাসপাতালে ভর্তি করে দিয়েছেন।

চিকিৎসাধীন রেজাউল ইসলামের স্ত্রী জানান, আমার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলে মাতব্বররা ব্যাপক মারপিট করেছেন। ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের করা হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবি করছি প্রশাসনের কাছে।

আরও পড়ুন: আইআরজিসি, হিজবুল্লাহ ও হামাসের বিরুদ্ধে ফের নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের

সালিশের সভাপতি ইউপি সদস্য মোজাম্মেল হক জানান, পারইটুঙ্গী গ্রামের ঝড়ের মানিব্যাগ চুরির অভিযোগে সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়। বৈঠকের সিদ্ধান্তে রেজাউল ইসলামের ৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানা দিতে অস্বীকার করায় তাকে পেটানো হয়েছে বলে স্বীকার করেন তিনি।

মান্দা থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) মোজাফফর হোসেন জানান, এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে রেজাউল ইসলামের স্ত্রী বাদী হয়ে ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন । ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।

সালিশে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে আরেক ইউপি সদস্য বেলাল হোসেন, নারী ইউপি সদস্য বিলকিস খাতুনের স্বামী দুলাল হোসেন, মাতবর মামুনুর রশিদ, গ্রাম পুলিশ সোহেল রানাসহ এলাকার শতাধিক ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন