ঢাকা সোমবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২০, ১৪ মাঘ ১৪২৭
১৯ °সে

তিন ইউরোপীয় দেশের চিঠি প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান

তিন ইউরোপীয় দেশের চিঠি  প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান

ইরান পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের উন্নয়ন করছে বলে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জার্মানি যে অভিযোগ করেছে, তা প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান। জাতিসংঘ মহাসচিবকে লেখা এক চিঠিতে এই অভিযোগ করে ইউরোপীয় দেশ তিনটি। তেহরান দাবি করেছে, পরমাণু চুক্তির ন্যূনতম শর্ত পূরণে নিজেদের ব্যর্থতা আড়াল করতেই এমন অবস্থান নিয়েছে ঐ দেশগুলো।

নিজেদের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির সঙ্গে পরমাণু তত্পরতার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই বলে দাবি করেছে ইরানি কর্তৃপক্ষ। দেশটি জানিয়েছে, তেহরানের হাতে কোনো পরমাণু অস্ত্র নেই এবং এ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র বানানোর চিন্তাও করছে না তারা। ইরানের দাবি, ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি নিতান্তই তাদের অভ্যন্তরীণ প্রতিরক্ষার বিষয় এবং এ নিয়ে কারো সঙ্গে কোনো আলোচনা করা হবে না। ইউরোপীয় দেশ তিনটির ঐ চিঠির খবর প্রকাশ পেলে বৃহস্পতিবার ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় ইরানের কর্মকর্তারা। তাদের দাবি, তেহরান আত্মরক্ষার প্রয়োজনে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি চালিয়ে গেলেও, এর সঙ্গে পরমাণু তত্পরতার সংশ্লিষ্টতা নেই। গুতেরেসকে লেখা চিঠিতে জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের দূত মাজিদ তাখতে বলেন, ‘ইরান দৃঢ়ভাবে নিজেদের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ও মহাকাশযান সংশ্লিষ্ট কর্মকাণ্ড চালিয়ে যেতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’।

এর আগে বুধবার জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসকে চিঠি দিয়ে ইরানের পরমাণু তত্পরতার বিষয়ে সতর্ক করে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জার্মানি। জাতিসংঘে নিযুক্ত দেশ তিনটির রাষ্ট্রদূতের যৌথ চিঠিতে অভিযোগ করা হয়, নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব লঙ্ঘন করে পরমাণু তত্পরতা চালাচ্ছে তেহরান। গুতেরেসের পরবর্তী প্রতিবেদনে নিরাপত্তা পরিষদকে এই বিষয়ে জানানোর আহ্বান জানায় তারা।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফও তিন ইউরোপীয় দেশের চিঠির সমালোচনা করেন। ঐ চিঠিকে ভয়াবহ মিথ্যাচার দাবি করে টুইট বার্তায় তিনি পালটা অভিযোগ করেন ঐ তিনটি দেশই পারমাণবিক চুক্তির শর্ত মানছে না। তিনি বলেন, পরমাণু চুক্তির ন্যূনতম শর্ত পূরণ করতে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে জাতিসংঘে ভয়াবহ মিথ্যাচার করেছে ইউরোপীয় দেশগুলো।

২০১৫ সালের জুনে ভিয়েনায় ইরানের সঙ্গে নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ সদস্য দেশ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, রাশিয়া, চীন ও জার্মানি পরমাণু চুক্তিতে স্বাক্ষর করে। চুক্তি অনুযায়ী, ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি না করার প্রতিশ্রুতি দেয় তেহরান। ওবামা আমলে স্বাক্ষরিত এই চুক্তিকে ‘ক্ষয়িষ্ণু ও পচনশীল’ আখ্যা দিয়ে ২০১৮ সালের মে মাসে তা থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর ঐ বছরের নভেম্বর থেকে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল শুরু করে ওয়াশিংটন। অন্যদিকে ইউরোপীয় দেশগুলো ঐ চুক্তি বাস্তবায়নের কথা বললেও, কার্যত তারা কোনো পদক্ষেপ নেয়নি অভিযোগ করে চুক্তি থেকে পর্যায়ক্রমে সরে আসছে ইরান।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২৭ জানুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন