ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৫ মাঘ ১৪২৭
২৪ °সে

সেন্টমার্টিনে কুকুর আতঙ্কে পর্যটকেরা!

সেন্টমার্টিনে কুকুর  আতঙ্কে পর্যটকেরা!
সেন্টমার্টিন সৈকতে বেওয়ারিশ কুকুর —ইত্তেফাক

কক্সবাজারের টেকনাফ সেন্টমার্টিনে কুকুরের উপদ্রবে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে পর্যটক এবং দ্বীপের বাসিন্দারা। প্রায় ১০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের ছোট্ট এই দ্বীপে ৫ হাজারের মতো কুকুর রয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবি। যে দ্বীপে প্রায় ১০ হাজার মানুষের বসবাস সেখানে এত কুকুর পর্যটক এবং স্থানীয়দের রীতিমতো ভাবিয়ে তুলছে। এসব কুকুর বেশির ভাগই বেওয়ারিশ বলে জানা গেছে। এদিকে কুকুরের কারণে দ্বীপের অনেক অভিভাবক ছেলেমেয়েদের স্কুল, মাদ্রাসায় পাঠাতেও ভয় পাচ্ছেন। বেওয়ারিশ কুকুর তাদের ছেলেমেয়েদের যদি কামড় দেয় এই ভয়ে অনেকে ছেলেমেয়েদের বাড়ি থেকে বের হতে দেন না।

জানা যায়, দ্বীপের বাজার, সমুদ্রসৈকত এবং জেটির পার্শ্ববর্তী এলাকায় বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব বেশি। বিষয়টিকে পর্যটকসহ স্থানীয় বাসিন্দারা পর্যটনের জন্য ক্ষতির কারণ হিসেবে দেখছেন। পর্যটকরা ভোর এবং বিকালে সমুদ্রে যেন অবাধে বিচরণ করতে পারেন সেজন্য দ্রুত সময়ে কুকুর নিধন প্রক্রিয়া শুরুর দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

দ্বীপের জনপ্রতিনিধিরা জানান,গত কয়েক বছর ধরে কুকুর নিধন প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে। এই কারণে কুকুরের সংখ্যা বহুগুণ বেড়ে গেছে। কুকুর নিধন কার্যক্রম বন্ধ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আতঙ্কও বেড়েই চলছে।

মিরসরাই থেকে বেড়াতে আসা এনজিও কর্মী শাহাদত হোছাইন জানান, সেন্টমার্টিনের মতো এত ছোটো জায়গায় এত কুকুর! যা একেবারেই অকল্পনীয়। কুকুরের জ্বালায় সমুদ্রসৈকতে ঘোরাঘুরি করাটা আতঙ্কের ব্যাপার। দ্বীপে বেড়াতে আসা আরেক পর্যটক, ক্যাব চট্টগ্রাম মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক অজয় মিত্র শংকু জানান, কুকুরে শঙ্কিত পর্যটকরা। জীবনেও দেখিনি এত কুকুর! তিনি কুকুর নিধনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। উত্তর সৈকতে ডাব বিক্রেতা মোহাম্মদ ইসমাইল জানান, গত বছর কুকুরের কামড়ে মাঝেরপাড়া এলাকার এক মুরুব্বি মারা যান। বেওয়ারিশ কুকুরের কারণে উত্তর সৈকতে একাকী চলাচল করা মুশকিল। তিনি পর্যটক এবং স্থানীয়দের সুবিধার্থে দ্বীপের বেওয়ারিশ কুকুর নিধনের দাবি জানান।

দ্বীপের বাসিন্দা ও হোটেল সী প্রবালের এমডি আব্দুল মালেক জানান, বেওয়ারিশ কুকুরের কারণে দ্বীপের মানুষ আতঙ্কে আছে। প্রবাল দ্বীপে বেড়াতে আসা পর্যটকরাও আতঙ্ক নিয়ে চলাফেরা করছেন। পর্যটনের ভর মৌসুমে তিনি জনস্বার্থে কুকুর নিধনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সেন্টমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ নুর আহমদ জানান, দ্বীপে প্রায় ৫ হাজারেরও বেশি বেওয়ারিশ কুকুর রয়েছে। এসব কুকুরের কারণে পর্যটকসহ স্থানীয়রা রীতিমতো আতঙ্কে রয়েছেন। তিনি বিষয়টি জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত সভায় একাধিকবার উত্থাপন করেছেন জানিয়ে বলেন পরিবেশ অধিদপ্তরের বাধার কারণে কুকুর নিধন কর্মসূচি বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, আইনী জটিলতার কারণে দ্বীপের বেওয়ারিশ কুকুর নিধন করা যাচ্ছে না। তবে তিনি পর্যটক এবং স্থানীয়দের স্বার্থে বিকল্প ব্যবস্থাপনার কথা জানান। এই বিষয়ে জানতে পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক নুরুল আমিনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কুকুর নিধনের বিষয়ে পরিবেশের কোনো বাধা নেই বলে জানান।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২৮ জানুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন