ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৫ মাঘ ১৪২৭
২৪ °সে

বাজিতপুরে প্রতিবন্ধিতাকে চ্যালেঞ্জ করে এখন উচ্চশিক্ষিত মাহবুব

‘মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন’ গঠন করে ঘটিয়েছেন প্রতিবন্ধী বিপ্লব
বাজিতপুরে প্রতিবন্ধিতাকে চ্যালেঞ্জ করে এখন উচ্চশিক্ষিত মাহবুব
বাজিতপুর (কিশোরগঞ্জ) :প্রতিবন্ধী মাহবুবের প্রতিষ্ঠিত প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র। ইনসেটে মাহবুব —ইত্তেফাক

বাজিতপুর উপজেলায় বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিবন্ধীর সংখ্যা প্রায় চার হাজার। এর মধ্যে সর্বাধিক ৬০০ এর অধিক প্রতিবন্ধী রয়েছে উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নে। এ ইউনিয়নের গোথালিয়া গ্রামের মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া শৈশবেই হাঁটার জন্য হাতে তুলে নেন লাঠি। যে বয়সে দুরন্তপনা করে ঘুরে বেড়ানোর কথা—সেই বয়সে হয়ে পড়েন ঘরবন্দি। লাঠি ভর দিয়ে স্কুলে যাওয়ায় শিশুরা তাকে খেলতে নিতো না। শিক্ষকরা বলে দেন, মাহবুব স্কুলে পড়ে কিছু করতে পারবে না, মাদ্রাসায় ভর্তি করান। তাই জীবনটা যাতে কোনোভাবে কাটাতে পারে সেজন্য দর্জির দোকানে কাজ শেখেন মাহবুব। কিন্তু মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়ার স্বপ্ন ছিল; সমাজে প্রতিবন্ধীরা প্রতিবন্ধক নয়—সহায়ক, তা প্রমাণ করার। শুরু করেন পড়ালেখা। মেধায়, আচরণে প্রতিবন্ধিতাকে তুচ্ছ করে সমাজের অন্য দশটা ছেলের মতো এগিয়ে যান তিনি। শিক্ষকরাও তাকে কাছে টেনে নেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ, এমবিএ পাস করে সব অবজ্ঞা পেছনে ফেলে যোগ দেন চাকরিতে। চাকরির পাশাপাশি সামাজিক দায়বদ্ধতা ও নিজের জীবনের তিক্ত অভিজ্ঞতায় ২০১০ সালে উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা গোথালিয়ায় প্রতিষ্ঠা করেন ‘মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন’। ২০১৫ তে প্রতিষ্ঠা করেন-প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র। যে পাঠশালায় বর্তমানে ১২৭ জন প্রতিবন্ধী শিশু পড়ালেখা করছে; যাদের অধিকাংশ অটিস্টিক; বুদ্ধি প্রতিবন্ধী, সেরিব্রালপালসি ও ডাউন্স সিলড্রোমে আক্রান্ত শিশু। পাঠশালায় বর্তমানে ১৮ জন শিক্ষক-কর্মকর্তা ও ভ্যানচালক স্বেচ্ছাশ্রমে এই অবহেলিত শিশুদের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধব, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সহযোগিতায় তিন হাজারের অধিক অসহায় প্রতিবন্ধী পরিবারকে বিনামূল্যে চিকিত্সাসহ ওষুধ দিচ্ছেন। ফাউন্ডেশনের অধীনে প্রতিবন্ধীবান্ধব শিক্ষায় অবদানের জন্য প্রতি বছর দেওয়া হয় শিক্ষক পুরষ্কার। নিয়মিত আয়োজন করা হয় প্রতিবন্ধী কৃষকমেলা। দুই শতাধিক প্রতিবন্ধীকে দেওয়া হয়েছে প্রশিক্ষণ ও সেলাই মেশিন। এছাড়া প্রতিবন্ধী শিশুদের স্বাস্থ্য ও পুষ্টি কার্যক্রম, সফল শিক্ষার্থী সংবর্ধনা, অসহায় ও প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক পুনর্বাসনে জাকাত ফান্ড গঠন করা হয়েছে। প্রতিবন্ধীদের পত্রিকা পড়ার অভ্যাস গঠনে প্রদান করা হয় বিনামূল্যে জাতীয় দৈনিক পত্রিকা। মৃত্তিকা ফাউন্ডেশনের সহায়তায় উপজেলার বিল গজারিয়া গ্রামে একটি প্রতিবন্ধী পরিবারকে (মা ছাড়া পরিবারের সবাই প্রতিবন্ধী) পড়াশোনার খরচ দেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ মো. আফজাল হোসেন বলেন, মাহবুব বাজিতপুর উপজেলার সব প্রতিবন্ধীকে জাগিয়ে তুলেছে। এ যেন এক প্রতিবন্ধী বিপ্লব।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে মাহবুবকে কিশোরগঞ্জ জেলায় ‘সফল প্রতিবন্ধী ব্যক্তি’ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২৮ জানুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন