ঢাকা মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬
২৪ °সে

প্রিয় প্রাঙ্গণে ইশরাত নিশাতের শেষ বিদায়

প্রিয় প্রাঙ্গণে  ইশরাত নিশাতের  শেষ বিদায়

্বচলে গেলেন অভিনেত্রী ইশরাত নিশাত। রবিবার রাত ১১টার দিকে গুলশানে বোনের বাসায় হার্ট অ্যাটাকে বাথরুমে পড়ে যান তিনি। দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিত্সক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

গতকাল দুপুর ১টা থেকে সাড়ে ৩টা পর্যন্ত রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সামনে ইশরাত নিশাতের প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শেষ শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য রাখা হয় তার মরদেহ। তাকে শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রিয় মানুষটিকে নিয়ে কাঁদতে কাঁদতেই কথা বলেন ভালোবাসার মানুষগুলো।

ইশরাত নিশাত ‘দেশ নাটক’ নাট্যদলের সাথে যুক্ত ছিলেন। মঞ্চে একাধারে অভিনেত্রী, নির্দেশক ও আবৃত্তিশিল্পী হিসেবে খ্যাতি কুড়িয়েছেন। দেশ নাটকের প্রযোজনায় ‘অরক্ষিতা’ নাটকটি নির্দেশনা দেন তিনি এবং বেশ প্রশংসিত হয়। চলতি মাসের ২৪ ও ২৫ তারিখ মঞ্চে আসছে দেশ নাটক প্রযোজিত নতুন নাটক ‘জলবাসর’। মাসুম রেজা নির্দেশিত এই নাটকটি মঞ্চের জন্য তৈরি করতে বেশ পরিশ্রম করেছেন ইশরাত নিশাত। অথচ নাটকটি মঞ্চায়নের পাঁচদিন আগে সবাইকে ছেড়ে ওপারে পাড়ি জমালেন এই সংগ্রামী নাট্যকর্মী। প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক আন্দোলনে তাঁর কণ্ঠ ছিল সব সময় সোচ্চার। তার চলে যাওয়ায় নাট্যাঙ্গনের অনেকে শোক প্রকাশ করেন।

ইশরাত নিশাতকে নিয়ে নাট্যব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন ইউসুফ বলেন, ‘নিশাত আমার কন্যার মতো নয়, সে আমার কন্যা। ওর মা-ও মারা গিয়েছিলেন এমন গভীর রাতে। ওকে আগলে রাখতে চেষ্টা করেছি, কিন্তু এমন উচ্ছল প্রাণের মানুষকে কী আর আগলে রাখা যায়! আপনারা সকলে মঞ্চের মানুষ হারিয়েছেন, আমি ঘরের মানুষ এবং মঞ্চের মানুষ, দুজনকেই হারিয়েছি। নিশাত মানুষকে ভালোবাসতে জানত। সে নাটক ও জীবনকে একীভূত করেছিল।’

নির্দেশক ও অভিনেতা আলী যাকের বলেন, ‘নিশাতকে আমি মেয়ের মতো স্নেহ করতাম। তার চলে যাওয়াটা মেনে নেওয়া কঠিন। তাকে হারিয়ে মঞ্চ অনেক কিছু হারালো।’ নাট্যকার মাসুম রেজা বলেন, ‘নাটকের জন্য অত্যন্ত নিবেদিত প্রাণ ছিলেন নিশাত। এমন নিবেদিত প্রাণ আর ভালোবাসার মানুষ আরেকজন পাওয়া কঠিন। খুব অল্প সময়ে সবকিছুই মনে হয় শূন্য হয়ে গেল।’ এসময় ইশরাত নিশাতের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আরও উপস্থিত ছিলেন অভিনেত্রী সারা যাকের, সংগীতশিল্পী বাপ্পা মজুমদার, অভিনেত্রী বন্যা মির্জা, অভিনেত্রী মোমেনা চৌধুরী, কামাল বায়েজিদ, বৃন্দাবন দাশসহ অসংখ্য মানুষ। দলগতভাবে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগ, অভিনয় শিল্পী সংঘ, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, স্রোত আবৃত্তি সংসদ, সেন্টার ফর এশিয়ান থিয়েটার, চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়সহ বেশকিছু সংগঠন। আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীসহ নাট্য ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বগণ।

নাট্যশালার সামনে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর ইশরাত নিশাতের মরদেহ নেওয়া হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদে। সেখানে জানাজা শেষে বনানী গোরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন